বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ১১:২৫ পূর্বাহ্ন

সোমবারের মধ্যে পাওনা পরিশোধ না করলে প্রশাসন নিয়োগ দেবে বিটিআরসি

  • সর্বশেষ আপডেট বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০, ১২.৩৯ পিএম

আলোকিত কন্ঠ ডেস্ক।। আগামী সোমবারের মধ্যে পাওনা টাকা পরিশোধ না করলে আইন অনুযায়ী গ্রামীণফোনে প্রশাসক নিয়োগ করবে বিটিআরসি। বিটিআরসির পাওনা সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার মধ্যে এক হাজার কোটি টাকা আগামী চারদিনের মধ্যে (সোমবার) গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষকে পরিশোধ করতে আপিল বিভাগের নির্দেশের পর আজ দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসি জানায়, এই সময়ের মধ্যে পাওনা পরিশোধ না করলে গ্রামীণফোনে প্রশাসক নিয়োগ করা হবে।

আদালতে গ্রামীণফোনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এএম আমিন উদ্দিন ও ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান চৌধুরী। অন্যদিকে বিটিআরসির পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মাহবুবে আলম ও আইনজীবী ব্যারিস্টার খন্দকার রেজা-ই-রাকিব।

গত ২৪ নভেম্বর আপিল বিভাগ প্রায় ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা পাওনার মধ্যে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) তিন মাসের মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা দিতে গ্রামীণফোনকে নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। এ আদেশ রিভিউ চেয়ে আবেদন করে গ্রামীণফোন।

পরে ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান চৌধুরী বলেন, অডিটে রবির ক্ষেত্রে সিম্পল ইন্টাররেস্ট ক্যালকুলেট করা হয়েছে। জিপির ক্ষেত্রে কম্পাউন্ড ইন্টারেস্ট সিস্টেমে করা হয়েছে। আজ  (বৃহস্পতিবার) আদালত বলেছেন- সোমবারের মধ্যে এক হাজার কোটি টাকা দিয়ে আসতে। ওইদিন রিভিউ আবেদনের ওপর আদেশর জন্য দিন ধার্য্য রেখেছেন আদালত। আমরা এখন এটা কোম্পানিকে জানাবো। আদালত বলেছেন- আদেশ অনুসারে অবশ্যই দুই হাজার কোটি টাকা দিতে হবে। আমরা বলার চেষ্টা করেছি কোম্পানির অ্যাবিলিটি তো থাকতে হবে। গ্রামীণফোন একটা শেয়ার মার্কেট লিস্টেড কোম্পানি।

তিনি আরো বলেন, আমারা আদালতে বলেছি ৫০০ কোটি টাকা এক মাসে দেবো। বাকিটা ছয় মাসে ইক্যুয়েলি দেবো। কিন্তু আদালত সেটা গ্রহণ করেননি।

গত বছরের ২ এপ্রিল বিভিন্ন খাতে ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা দাবি করে বিটিআরসি গ্রামীণফোনকে চিঠি দিয়েছিল। পরে গ্রামীণফোন ওই চিঠির বিষয়ে নিম্ন আদালতে টাইটেল স্যুট (মামলা) করে। একই সঙ্গে ওই মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অর্থ আদায়ের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করা হয়। পরে ২৮ আগস্ট নিম্ন আদালত গ্রামীণফোনের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন খারিজ করে দিলে ওই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করে গ্রামীণফোন।

পরে শুনানি শেষে গত বছরের ১৭ অক্টোবর আদালত আপিলটি শুনানির জন্য গ্রহণ করে টাকা আদায়ের ওপর দুইমাসের অন্তর্র্বতীকালীন নিষেধাজ্ঞা দেন।

পরে গ্রামীণফোনের কাছে ওই টাকা দাবি আদায়ের ওপর হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত চেয়ে বিটিআরসি আপিল বিভাগে আবেদন করে।

ওই আবেদনের ওপর শুনানি শেষে গত বছর ২৪ নভেম্বর তিন মাসের মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা দেওয়ার আদেশ দেন আপিল বিভাগ। এ আবেদেনের রিভিউ চেয়ে আবেদন করে গ্রামীণফোন।

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themebaalokitokant1852550985
©2019-20 All rights reserved Alokitokantho  
Devoloped by alokito kantho.com