শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন

গফরগাঁওয়ে রেল সেতুর পাশে সড়ক সেতু নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর

  • সর্বশেষ আপডেট বৃহস্পতিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২০, ৫.১৬ পিএম
  • ৭২ বার পড়া হয়েছে

মাহমুদুর রহমান আহাদঃ ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার মশাখালী থেকে রেল লাইনের পাশ দিয়ে গয়েশপুর পর্যন্ত শিলা নদীর ওপর রেল সেতুর পাশে সড়ক সেতু নির্মাণের দীর্ঘদিনের দাবি এলাকাবাসীর।সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, লংগাইর, পাইথল ও নিগুয়ারী ইউনিয়নের প্রায় ২০-২৫ টি গ্রামের মানুষের উপজেলায় যাওয়া আসার উল্লেখযোগ্য রাস্তা এটি। প্রতিদিন আশপাশের গ্রামের হাজারো লোকজন স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীসহ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রেলসেতু দিয়ে চলাচল করে। কেউ আবার সাথে বাই সাইকেল বা মোটর সাইকেল নিয়ে পার হয়। পার হতে গিয়ে অনেক সময় অনাকাংখিত ঘটনা ঘটে। এমনকি ট্রেনে কাটা পড়ে মানুষ মারা যাওয়ার মতোও ঘটনা ঘটছে। তাছাড়া অত্র উপজেলার যে সকল লোক পার্শ্ববর্তী উপজেলা ভালুকা এবং গাজীপুর জেলার শ্রীপুরের বিভিন্ন শিল্পকারখানাসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত তাদের অধিকাংশই যাতায়াতের ক্ষেত্রে উল্লেখিত রাস্তাটি ব্যবহার করেন। উল্লেখ্য যে, গফরগাঁও থেকে রেল লাইনের পাশ দিয়ে মশাখালী হয়ে গয়েশপুর পর্যন্ত রাস্তাটি পাকা হলেও শিলা নদীর ওপর সড়ক সেতু না থাকায় সরাসরি কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারেনা।হাওয়াখালী গ্রামের বাসিন্দা মশাখালী-চাইরবাড়িয়া বাজারের ব্যবসায়ী আবুল মুনসুর খান বলেন, আমরা প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রেল সেতু দিয়ে চলাচল করি। সকলের নির্বিঘ্নে যাতায়াতের জন্য বিকল্প সড়ক সেতু নির্মাণ একান্ত প্রয়োজন।হাওয়াখালী, পূর্ব ও পশ্চিম গোলাবাড়ী, নেওকা, শহীদ নগর, দেওলপাড়া, হটুয়াটেক, গোয়ালবর, পাইথল এবং গয়েশপুর গ্রামের লোকজন অভিযোগ করে বলেন, ‘দেখার কেউ নেই। তারা চাইছেন মাননীয় এম.পি মহোদয় ও প্রশাসন শিলা নদীর ওপর সড়ক সেতু তৈরিতে নজর দিবেন। এতে মশাখালী ও গফরগাঁওয়ের সঙ্গে গয়েশপুরসহ অত্র এলাকার যোগাযোগ মসৃণ হবে। যাতায়াতের ঝুঁকি কমবে।

লংগাইর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব আব্দুল্লাহ আল-আমিন বিপ্লব এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, এই রাস্তা দিয়ে অনেক লোকজন চলাচল করে বিধায় মানুষের উপকারার্থে সেতুটি নির্মাণ করা দরকার।এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় থেকে জানা যায়, কয়েকবছর আগে সেতুটি নির্মাণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল কিন্তু জায়গাটি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের হওয়ায় জটিলতা সৃষ্টি হয়। বর্তমানে সেতু নির্মাণের বিষয়টি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের ওপর নির্ভর করছে।

আপনার মতামত দিন:

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ
themebaalokitokant1852550985
©2019-20 All rights reserved Alokitokantho