রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:৫৮ পূর্বাহ্ন

কালিয়াকৈরে প্রকাশ্যে পুলিশ কর্মকর্তার সামনে স্ত্রীকে মারধোর করলো পাষন্ড স্বামী 

  • সর্বশেষ আপডেট বুধবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২১, ৮.০৫ পিএম
  • ৭৪ বার পড়া হয়েছে

বিল্লাল হোসেন সাজু গাজীপুরঃ

কালিয়াকৈরে দিবালোক প্রকাশ্যে পুলিশ কর্মকর্তাদের এস আই মাহাবুব আলমের সামনে তানিয়া বেগম(৩২) নামের এক গৃহবধূকে বেদরক মারধোর করেছে তার স্বামী মাইনুদ্দিন(৪৫) চাটলাদার।

মঙ্গলবার বিকালে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা ডাইনকিনি এলাকায় বাছেদ হোসেনের বাড়িতে ভাড়াটিয়া তানিয়া বেগমের  স্বামীর বিরুদ্ধে থানায় স্ত্রীর দায়ের করা  যৌতুক মামলার জেরধরে  মাইনুদ্দিনের প্রথম স্ত্রী ও তিন সন্তান মিলে মারধোর করে এমন অভিযোগ এনে কালিয়াকৈর থানায় মামলা করায়।ইনুদ্দিন এসআই মাহাবুব ও তার বন্ধু কামালকে সাথে নিয়ে তানিয়ার বাসায় এসে তাদের সামনেই অভিযুক্ত পাষন্ড স্বামী মাইনুদ্দিন মারধর করেন।

অভিযুক্ত মাইনুদ্দিন টাঙ্গাইলের সদর থানার মৈশাকান্দা গ্রামের মৃত কাবেল চাকলাদারের ছেলে।
ভুক্তভোগী ও পুলিশ সূত্রে জানাযায় গত সোমবারে ভুক্তভোগী ঐ নাড়ি তার স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুকের জন্য মারধোরের অভিযোগ এনে কালিয়াকৈর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে এস আই হাফিজ উদ্দিনের কাছে ।

পরে সেই মামলার তদন্ত করতে আসে এস আই হাফিজ উদ্দিন এসে দেখে এস আই মাহবুব।  এতে এলাকাবাসীরা ও ভুক্তভোগী ঐ নাড়ি অসন্তোষ প্রকাশ করে।এর আগে  চেক জালিয়াতির মামলায় ৪২ দিন কারাভোগ শেষে মঙ্গলবার বার সকালে জামিনে মুক্তি পায় মাইনুদ্দিন। জামিনে মুক্তি পেয়ে বাসায় এসেই মারধরের ঘটনা ঘটায়।উল্লেখ ১৫ বছর আগে মাইনুদ্দির সাথে তানিয়া বেগমের প্রেম সম্পর্কে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তানিয়া বেগম জানতে পারেন তার আরেকটি স্ত্রী আছে এবং সেই ঘরে ২টি সন্তান আছে। তবুও সুখের আসায় সব কিছু মেনে নিয়ে ঘর সংসার করতে থাকে।কিন্তুু কিছুদিন যাবার পর মাইনুদ্দিন যৌতুকের দাবিতে সব সময় মারধোর করে আসতো এসব জালা যন্ত্রণা অপেক্ষা করেই ১৫টি বছর পার করছেন তানিয়া বেগম। বর্তমানে তার ঘরে একটি ১৪ বছরের ছেলে সন্তান আছে।

এবিষয়ে ভুক্তভোগী নাড়ি জানান বিয়ের পর থেকেই তাকে নানা ভাবে নির্যাতন করে আসছে এমন কি তার প্রথম স্ত্রী ও তার সন্তানরা এর আগেও অনেক বার মারধোর করেছেন।এছারা মাইনুদিন  মাদক,জুয়া  সহ নান অপকর্মের সাথে জরিত বলে জানান তানিয়া বেগম। এখন তিনি এই মারধরের ঘটনায় জীবনহানীর আতঙ্কে ভুগছেন।

ঐনাড়ি আরো জানান গত দুই মাস আগে মানুষের টাকা আত্ম সাদ করে চেক জালিয়াতির মামলায় ৪২ দিন কারাভোগ শেষে আজকে জামিনে এসেই এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। এখন পুলিশের সামনেই যদি নির্যাতন করে তাহলে আড়ালে কি না কি ঘটাবে এ নিয়ে জীবন সঙ্খায় আছেন।এ ঘটনায় পুলিশের এমন উদাসীন অপারগতা কারন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ভুক্তভোগী নাড়ি ও এলাকাবাসী।

এ ঘটনায় কালিয়াকৈর থানার এস আই হাফিজ জানান অভিযোগ পেয়ে  ঘটনাস্থলে তদন্ত করার আগেই এই ঘটনা ঘটে।

আপনার মতামত দিন:

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ
themebaalokitokant1852550985
©2019-20 All rights reserved Alokitokantho